বেলস্‌ পালসি

বেলস্‌ পালসি

বেলস্‌ পালসি হল মুখের একধরনের পক্ষাঘাত। সপ্তম ক্রেনিয়াল নার্ভ (মুখের স্নায়ু) আমাদের মুখের পেশিগুলি নিয়ন্ত্রিত করে। যখন এই স্নায়ুগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয় তখন মুখের একপাশে পেশিগুলি শক্তি হারায় এবং বেঁকে যায়। প্রত্যেকের এক রকমের উপসর্গ দেখা যায়না। এটি নিম্নলিখিত ধরণের হয়:

আংশিক পক্ষাঘাত: এটি হল পেশির মৃদু দুর্বলতা।

সম্পূর্ণ পক্ষাঘাত: এক্ষেত্রে মুখের কোনপ্রকার নড়াচড়া হয় না (যদিও খুব বিরল)।

তথ্যসূত্র-

www.nhs.uk
www.ninds.nih.gov
www.nlm.nih.gov
www.ninds.nih.gov

  • আক্রান্ত চোখে জ্বালা অনুভূত হওয়া, অনেকক্ষেত্রে চোখের আর্দ্রতা কমে যায় বা বারংবার জল আসে।
  • মুখের যেদিক পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হয়, সেই দিকের কানের নীচে যন্ত্রণা।
  • মুখ দিয়ে লালা গড়িয়ে পড়ে।
  • মুখ শুকিয়ে যাওয়া।
  • খেতে বা জলপান করতে সমস্যা।
  • কথা বলতে সমস্যা।
  • এই রোগে মানুষের মুখের একদিক পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হয়, ফলে চোখ বন্ধ করতে অসুবিধা হয়।
  • আক্রান্ত রোগীরা খাবারে স্বাদ অনুভব করেন না।
  • পক্ষাঘাতের ফলে আক্রান্ত কানের সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি পায়।
  • চোয়ালের চারপাশে ব্যথা।
  • মাথা যন্ত্রণা।
  • মাথা ঘোরা।

তথ্যসূত্র-

www.nhs.uk

ভাইরাস-

  • মুখের স্নায়ু প্রদাহের অন্যতম কারণ হল হার্পিস ভাইরাস সংক্রমণ।
  • হার্পিস টাইপ ১ (এইচএসভি-১)-সহ হার্পিস সিমপ্লেক্স ভাইরাসের (এইচএসভি) সংক্রমণের ফলে ঠান্ডা ঘা বা হারপিস টাইপ-২(এইচএসভি - ২) এর ফলে যৌনাঙ্গে ঘা হয়।
  • ভেরিসেলা-জোস্টার ভাইরাস, যা জলবসন্ত এবং কটিদাদ সৃষ্টি করে।

মুখমণ্ডলের স্নায়ু-  

  • মুখের স্নায়ুটি (সপ্তম) মস্তিষ্ক থেকে মুখের দিকে যাওয়ার পথে উপরের চোয়ালের কাছে হাড়ের সরু ফাঁক দিয়ে যায়। মুখের স্নায়ু সংকুচিত বা ফুলে গেলে, মস্তিষ্ক মুখের পেশিগুলিতে যে সংকেত প্রেরণ করে তা বাধা পায়।
  • এই বাধার ফলে স্নায়ুগুলিতে রক্ত এবং অক্সিজেন সরবরাহে ব্যাঘাত ঘটে এবং মুখের দুর্বলতা বা পক্ষাঘাতের কারণ হতে পারে যা বেলস্‌ পালসির অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

তথ্যসূত্র-

www.nhs.uk

বেলস্‌ পালসি নির্ণয়ের জন্য নির্দিষ্ট কোনও পরীক্ষা নেই। বেলস্‌ পালসির সঙ্গে সম্পর্কিত লক্ষণগুলি চিকিৎসককে রোগ নির্ধারণে সহায়তা করে।

চৌম্বকীয় অনুরণন চিত্র (এমআরআই)- এটি মুখের স্নায়ুর উপর চাপের কারণ নির্ধারণ করতে ব্যবহৃত হয়। শরীরের অভ্যন্তরের পুঙ্খানুপুঙ্খ চিত্র তৈরি করতে একটি শক্তিশালী চৌম্বকীয় ক্ষেত্র এবং রেডিও তরঙ্গ ব্যবহার করা হয় এমআরআই স্ক্যানে।

কম্পিউটারাইজড টমোগ্রাফি (সিটি) স্ক্যান- এটি লক্ষণগুলির অন্যান্য কারণ যেমন কোনও সংক্রমণ বা টিউমার শনাক্ত করতেও ব্যবহৃত হয়।

ইলেক্ট্রোমায়োগ্রাফি (ইএমজি)- একটি ইলেক্ট্রোডায়াগনস্টিক মেডিসিন কৌশল। এটি একটি খুব পাতলা ইলেক্ট্রোড সুচ যা ত্বকের মাধ্যমে পেশিতে প্রবেশ করানো হয়। এরপরে একটি অ্যাসিলোস্কোপ নামক যন্ত্রের সাহায্যে পেশি এবং স্নায়ুর বৈদ্যুতিক ক্রিয়াকলাপ পরিমাপ করতে ব্যবহার করা হয়। কোনও ইএমজি প্রদত্ত তথ্যের মাধ্যমে কোনও স্নায়ুর ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা সহজ হয়।

তথ্যসূত্র-

www.nhs.uk
www.ninds.nih.gov

ব্যাথা উপশমকারী: প্যারাসিটামল এবং এনএসএআইডি (নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টি ইনফ্লেমেটারি ড্রাগ) যেমন আইবুপ্রোফেন ইত্যাদি ব্যথানাশক ওষুধ হিসাবে কার্যকরী।

গরম এবং ঠাণ্ডা সেঁক: গরম জলে স্নান বা আক্রান্ত স্থানে গরম জলের বোতল রাখলে অনেকে আরাম পান। আবার আইস ব্যাগ, ঠাণ্ডা সবজি ব্যথার জায়গায় রাখলেও আরাম অনুভব করেন।

স্বাচ্ছন্দ্য: আরাম করতে হবে। কারণ শারীরিক অবস্থার বিষয়ে উদ্বেগের ফলে পেশিগুলির উত্তেজিত হয় এবং পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে।

ওষুধ: প্রেডনিসোলনের মতো কর্টিকোস্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ প্রদাহ (ফোলাভাব) কমাতে সহায়তা করে, যা দ্রুত আরোগ্য লাভেও সাহায্য করে।

ফিজিওথেরাপি: ফিজিওথেরাপিস্টরা মুখের জন্য নানারকম ব্যায়াম শিখিয়ে দেন যার সাহায্যে মুখের পেশিগুলির সমন্বয় এবং গতিবিধির উন্নতি হয়।

তথ্যসূত্র-

www.ninds.nih.gov

  • PUBLISHED DATE : Jan 13, 2020
  • PUBLISHED BY : NHP Admin
  • CREATED / VALIDATED BY : Paulami
  • LAST UPDATED ON : Jan 13, 2020

Discussion

Write your comments

This question is for preventing automated spam submissions
The content on this page has been supervised by the Nodal Officer, Project Director and Assistant Director (Medical) of Centre for Health Informatics. Relevant references are cited on each page.